২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | রবিবার, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

ফেনীতে টাকার বিনিময়ে যুবদলের কমিটি গঠনের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০, ১১:০১ অপরাহ্ণ



ফেনী প্রতিনিধি
ফেনীতে মোটা অঙ্কের বিনিময়ে কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে জেলা যুবদলের শীর্ষনেতাদের বিরুদ্ধে। দলের ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে টাকার বিনিময়ে জেলার ১১টি ইউনিটের আহবায়ক কমিটি গঠনের জন্য কেন্দ্রে তালিকা প্রেরণ করা হয়েছে বলে দলীয় একাধিক সূত্র নিশ্চিত করে।

সূত্র জানায়, চলতি বছরের শুরুর দিকে জেলার ১১টি ইউনিটে আহবায়ক কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয় কেন্দ্রিয় যুবদল। তারই পরিপ্রেক্ষিতে ফেনীর ৬টি উপজেলা ও ৫টি পৌরসভা যুবদলের আহবায়ক কমিটি গঠন পক্রিয়া শুরু করে জেলা যুবদল। কমিটিতে মামলা-হামলা ও নির্যাতনের শিকার হওয়া নেতাদের বাদ দিয়ে টাকার বিনিময়ে সরকারদলীয় মদদপুষ্ট লোকদের দিয়ে কমিটি গঠনের তৎপরতা চালাচ্ছে জেলা যুবদল। করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ার পর কমিটি গঠনের জোর তৎপরতা শুরু হয়েছে। এ নিয়ে দলের ত্যাগী নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।

বঞ্চিত একাধিক নেতার অভিযোগ, ফেনী সদর উপজেলায় সাবেক আহবায়ক আতিকুর রহমান মামুন দুই ডজনেরও অধিক মামলা নিয়ে দলীয় কার্যক্রমে সক্রিয় থাকলেও তাকে বাদ দিয়ে নিজাম উদ্দিন নামে একজনকে আহবায়ক করার জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করেছে জেলা যুবদলের সভাপতি-সম্পাদক। ফেনী পৌর যুবদলের আহবায়ক কমিটিতে সদস্য সচিব পদে রাসেল পাটোয়ারীকে বাদ দিয়ে নিজাম উদ্দিন নামে একজনকে তালিকা করে কেন্দ্রে নাম পাঠানো হয়েছে। একইভাবে সোনাগাজী, দাগনভূঞা, ছাগলনাইয়া, ফুলগাজী ও পরশুরাম উপজেলা ও পৌর আহবায়ক কমিটিতেও একইভাবে ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি গঠনের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপজেলা কমিটিতে আহবায়ক প্রার্থী যুবদলের এক নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দলের জন্য ৪০টির অধিক মামলার শিকার হয়েছি। সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা বেশ কয়েকবার বাড়ি-ঘরে হামলা করেছ। কিন্তু কার ইন্দনে, কিসের লোভে আমাকে বাদ দিয়ে অপরিচিত একজনকে আহবায়ক করার জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে তা জানিনা।

ফেনী পৌর যুবদলের সদস্য সচিব প্রার্থী রাসেল পাটোয়ারী বলেন, দীর্ঘ ১২ বছর ধরে পৌর যুবদলের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছি। নানা ভাবে মামলা-হামলার শিকার হয়েছি। শুনেছি আমাকে বাদ দিয়ে মোটা অঙ্কের বিনিময়ে এক গাড়ী চালককে সদস্য সচিব করা হয়েছে।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, জেলা যুবদলের সভাপতি জাকির হোসেন জসিমের ঘনিষ্টজন নিজাম উদ্দিনকে সদরের আহবায়ক ও সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিনের ঘনিষ্টজন ফরিদুল ইসলাম রাহাতকে সদস্য সচিব করে তালিকা প্রেরণ করা হয়েছে। জেলার ১১টি ইউনিটে বেশিরভাগ অংশে মোটা অঙ্কের বিনিময়ে ত্যাগীদের বাদ দিয়ে ওই তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে অভিযোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন খোন্দকার সব অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, দলে সবসময় যোগ্য লোকরা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নিজের অবস্থান তৈরী করেন। এক্ষেত্রে যারা বঞ্জিত হন তারা সব সময় নানা অভিযোগ তুলেন।

Leave a Reply