২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | শনিবার, ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত, আনন্দ মিছিল

প্রকাশিতঃ জুলাই ৫, ২০২০, ৪:৫২ অপরাহ্ণ




কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি
কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। রোববার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ আদেশ দেওয়া হয়। একইদিন দুপুরে প্রজ্ঞাপনের কপি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো.নাহিদ হাসান।

একই প্রজ্ঞাপনে প্যানেল চেয়ারম্যান-১ কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, যেহেতু মো. রফিকুল ইসলাম (রেনু), চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ এর বিরুদ্ধে জনৈক বীরমুক্তিযোদ্ধাকে হত্যার অপরাধে দায়েরকৃত দায়রা মামলা নং-১০৯/০১(পাকুন্দিয়া থানার মামলা-১৫(৬)৯৯, জিআর-২৪৯(২)৯৯, এ বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহীত হয়ে বর্তমানে অতিরিক্ত দায়রা জজ ২য় আদালত, কিশোরগঞ্জে বিচারাধীন আছে এবং যেহেতু হত্যা মামলার একজন আসামী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আসীন থাকলে পরিষদের প্রতি জনসাধারণের শ্রদ্ধা ও আস্থা বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে যা পরিষদ বা রাষ্ট্রের স্বার্থের হানিকর তথা জনস্বার্থের পরিপন্থী। সেহেতু সরকার জনস্বার্থে তাকে তার স্বীয় পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।

এমতাবস্থায় উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ [উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১] এর ১৩খ(১)ধারা অনুসারে কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুকে পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো এবং পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-১ কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হলো।

এর আগে গত ২৮ মে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনু বীরমুক্তিযোদ্ধা ওমর ফারুক সেলিম হত্যা মামলার একজন আসামি (মামলা চলমান), অনিয়ম, দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, স্বাক্ষর জালিয়াতিসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যানসহ ৯জন ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুর বিরুদ্ধে অনাস্থা দিয়ে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে লিখিত আবেদন করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২৪মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতা করে মো. রফিকুল ইসলাম রেনু চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এদিকে রফিকুল ইসলাম রেনুর বরখাস্ত হওয়ার খবরে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেছে আওয়ামীলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। রোববার দুপুরে নারান্দী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি মিছিল বের হয়ে থানা গেইটের সামনে থেকে ঘুরে এসে একই স্থানে শেষ হয়।

এসময় বুরুদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা রুবেল, চণ্ডিপাশা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মো.মঈন উদ্দিন, সাবেক পৌরকাউন্সিলর আসাদ মিয়া, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি নাজমুল হক দেওয়ান, আওয়ামীলীগ নেতা বিল্লাল হোসেন ও আসাদুজ্জামান ডিলারসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply