২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | বুধবার, ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

জামালপুরে পরকীয়ার জেরে মা-ছেলে হত্যা

প্রকাশিতঃ আগস্ট ২৬, ২০২০, ৪:২০ অপরাহ্ণ | শেষ আপডেটঃ আগস্ট ২৬, ২০২০, ৪:৫৫ অপরাহ্ণ



জামালপুর প্রতিনিধি
জামালপুরের মাদারগঞ্জে নিজ বাড়ি থেকে গৃহবধূ মুসলিমা আক্তার শিখা (৩৫) ও তিন বছর বয়সী তার ছেলে তাওহিদের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে উপজেলার গুনারীতলা ইউনিয়নের চরগোপালপুর গ্রাম থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় ঘাতক স্বামী হারুন অর রশীদ পলাশ ও তার কথিত প্রেমিকা নূরহাজানকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, নিহত গৃহবধূ মুসলিমা আক্তার শিখা জেলার মাদারগঞ্জ পৌরসভার ঘোনাপাড়া গ্রামের মৃত মোকছেদ শেখের মেয়ে এবং হারুন অর রশীদ পলাশের স্ত্রী। হারুন অর রশিদ পলাশের সাথে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক কলহ চলছিল স্ত্রী মুসলিমা আক্তারের। বুধবার ভোরে মা ও ছেলের মৃত্যুর ঘটনা আঁচ করতে পেরে মাদারগঞ্জ থানায় খবর দেয় প্রতিবেশীরা। নিহতদের গলাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে জানায় তারা।

সূত্র আরো জানায়, জেলার মাদারগঞ্জের গুনারিতলা ইউনিয়নের চরগোপালপুর গ্রামের বিএডিসির সাবেক মেকানিক্স ফজলুল হকের ছেলে হারুন অর রশিদ পলাশ বেশ কিছুদিন বিদেশে ছিলেন। বিদেশ থেকে ফিরে এসে মাদারগঞ্জ পৌরসভার বালিজুড়ি বাজারের থানা মোড়ে স-মিল স্থাপন করে কাঠের ব্যবসা শুরু করেন। সম্প্রতি তিনি স-মিলের ব্যবসা বাদ দিয়ে বাড়িতে মুরগির খামার দিয়েছেন। এক মেয়ে ও দুই ছেলের বাবা তিনি। ওই স-মিলের ব্যবসা করার সময়ই হারুন স-মিলের কাছেই নূর হাজান নামের এক নারীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে স্ত্রী মুসলিমার সাথে তার পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়।

নিহত মুসলিমা আক্তার শিখার মামাতো বোন কেয়া জানান, তার দুলাভাই হারুন বেশ কিছুদিন যাবৎ পরকীয়ায় লিপ্ত হয়েছেন। ওই পরকীয়া প্রেমের কারণেই শিখা ও তার ছেলেকে খুন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জামালপুরের পুলিশ সুপার দেলোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের জানান, পরকীয়া প্রেমে পারিবারিক কলহের জের ধরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো বটি দা, রক্তমাখা একটি লুঙ্গি, বিছানার চাদর ও মাছ ধরার জাল আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে। নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহত মুসলিমার ভাই শ্যামল পারভেজ থানায় অভিযোগ করবেন বলে জানা গেছে।

তিনি আরো জানান, খবর পেয়ে তিনি ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার ঘটনাস্থল চরগোপালপুর গ্রামে হারুনের বাড়িতে গিয়েছিলেন।

Leave a Reply