২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | মঙ্গলবার, ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

ঘুরে দাঁড়ানোর পরীক্ষা কেকেআরের

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ৩:৫২ অপরাহ্ণ



ঘুরে দাঁড়ানোর পরীক্ষা কেকেআরের। ছবি সংগৃহীত

ক্রীড়া ডেস্ক:
মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে ব্যর্থতা ভুলতে মরিয়া আন্দ্রে রাসেল। শনিবার সানরাইজ়ার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে সেই পুরনো মেজাজে নিজেকে তুলে ধরতে চান বিধ্বংসী অলরাউন্ডার। শুক্রবার ম্যাচের আগের দিন নেটে দীর্ঘক্ষণ ব্যাট করেন রাসেল। বিশেষ করে স্লোয়ার ডেলিভারির বিরুদ্ধে নিজেকে ঝালিয়ে নেন বলেই খবর। শেষ ম্যাচে যশপ্রীত বুমরার বলে পরাস্ত হয়েছিলেন তিনি। আজ শনিবার ভুবনেশ্বর কুমার, নটরাজনের বিরুদ্ধে সেই ভুল শোধরানোর সুযোগ তারকা অলরাউন্ডারের।

দ্বিতীয় ম্যাচের আগের দিন নাইট শিবিরে মূল আলোচ্য বিষয়, রাসেলের ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে। দলীয় সূত্রে খবর, রান তাড়া করার ক্ষেত্রে তাঁকে নামানো হতে পারে তিন নম্বরে। শেষ ম্যাচে যদিও ছ’নম্বরে নামেন। গত বছর যা নিয়ে অধিনায়ক কার্তিকের সঙ্গে মনোমালিন্য হয় ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারের। এ বারও প্রথম ম্যাচে একই ভুল করেন কার্তিক। ওয়ার্নারদের বিরুদ্ধে তাঁর ব্যাটিং অর্ডার এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। তাঁকে উইকেটে থিতু হওয়ার কিছুটা সময় দেওয়া হতে পারে।

পরিবর্তন করা হতে পারে দলের কম্বিনেশনও। শেষ দু’দিন বিশেষ নজর দেওয়া হয় কমলেশ নগরকোটি ও প্রসিদ্ধ কৃষ্ণের উপরে। শিবম মাভি, প্যাট কামিন্সের সঙ্গে তৃতীয় পেসার হিসেবে দলে ঢুকে পড়বেন তাঁদের মধ্যে একজন। সন্দীপ ওয়ারিয়রের পারফরম্যান্স প্রথম ম্যাচে দাগ কাটতে পারেনি। কেকেআর জার্সিতে ১৪ উইকেট পাওয়া প্রসিদ্ধই তাই প্রথম পছন্দ। পিছিয়ে নেই নগরকোটিও। তাঁদের সঙ্গেই থাকছেন দুই স্পিনার। সুনীল নারাইন ও কুলদীপ যাদব।

শুক্রবার স্পিনারদের নিয়ে বিশেষ ক্লাস করেন ডেভিড হাসি ও কাইল মিলস। প্রথম ম্যাচে কুলদীপ যাদব নিজের সেরা ছন্দে ছিলেন না। ৩৯ রান দেন চার ওভারে। মাঝের ওভারগুলোয় রান তুলতে সমস্যা হয়নি রোহিত শর্মাদের। ওয়ার্নারদের বিরুদ্ধে রণনীতি পাল্টে নামতে পারেন কুলদীপ। তাঁকে হয়তো আগের মতো বলে ফ্লাইট দিতে দেখা যাবে না। গতি বাড়িয়ে বল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে চায়নাম্যানকে।

মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে কুলদীপের বিস্ময় ডেলিভারিও কার্যকরী হয়ে ওঠেনি। তাঁর সেই বিশেষ ডেলিভারির গতি একশো কিমি প্রতি ঘণ্টার বেশি হলেও ঠিক লাইন ও লেংথে রাখতে পারেননি। আবু ধাবিতে আজ, ওয়ার্নার, জনি বেয়ারস্টোদের পরাস্ত করার জন্য তাঁকে অনেক বেশি দায়িত্ব নিতে হবে। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের রাহুল চাহার, আরসিবির যুজ়বেন্দ্র চহাল, সিএসকের রবীন্দ্র জাডেজা যে কাজটা করছেন, কুলদীপের কাছ থেকেও সেই দায়িত্বই আশা করছে নাইট শিবির।

চাপের মধ্যে রয়েছেন অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকও। সানরাইজ়ার্সের বিরুদ্ধে ফের অঘটন ঘটলে তাঁর নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে সোশ্যাল মিডিয়ায়। দলে যে রয়েছেন বিশ্বকাপ জয়ী এক অধিনায়কও! সূত্র: আনন্দবাজার

Leave a Reply