১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | মঙ্গলবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

‘ঘর ছোট, ভাসানচরে থাকবো কিভাবে?’

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১১, ২০২০, ৪:১২ অপরাহ্ণ



‘ঘর ছোট, ভাসানচরে থাকবো কিভাবে?’ ছবি সংগৃহীত

পঁচাত্তর রিপোর্ট:
ভাসানচর দেখে ফিরে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থী দলের সদস্যরা সেখানকার সার্বিক অবকাঠামোকে ভালো বললেও থাকার ঘরের আকার নিয়ে অসন্তোষ জানিয়েছেন৷ তাদের মতে, ওই ঘরে দুই-তিন জনের বেশি থাকা সম্ভব নয়৷

তাদের কথা, ‘‘আমরা সাত-আট জনের একটি পরিবার সেখানে গিয়ে কিভাবে থাকবো? আর সেখানে গিয়ে থাকলেই বোঝা যাবে বাস্তব পরিস্থিতি কী৷’’ তাদের কেউই এখনো ভাসানচরে গিয়ে থাকার পক্ষে মত দেননি৷ তারা বলছেন, ‘‘পরিবারসহ সবার সঙ্গে কথা বলে তারপর দেখা যাবে৷ এই নিয়ে আমাদের নিজেদের মধ্যে নানা মত আছে৷ নানামুখী চাপও আছে৷’’

শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার বলেছেন, ‘‘যারা ভাসানচর দেখে এসেছেন, তাদের কেউ কেউ সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন৷ তবে তাদের মধ্যে ভিন্নমতও আছে৷’’

রোহিঙ্গাদের দুই নারীসহ ৪০ সদস্যের একটি দলকে কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্প থেকে ভাসানচর নিয়ে যাওয়া হয় গত ৫ সেপ্টেম্বর৷ ৮ সেপ্টেম্বর তারা ফিরে আসেন৷ নৌবাহিনী ও শরণার্থী কমিশনের তত্ত্বাবধানে সেখানকার অবস্থা দেখাতে তাদের সেখানে নেয়া হয়৷ ভাসানচরে থাকা অবস্থায় ডয়চে ভেলে তাদের দুইজন মোহাম্মদ নূর ও মোহাম্মদ মোস্তফার সাথে কথা বলে৷ বৃহস্পতিবার ওই দুইজনসহ মোট তিনজনের সঙ্গে আবার কথা বলে ডয়চে ভেলে৷

মোহাম্মদ নূর বলেন, ‘‘সেখানে অনেক কিছুই আছে৷ স্কুল, সাইক্লোন সেন্টার, অফিস৷ কিন্তু আটটি পরিবারের জন্য একসাথে যে থাকার ঘর করা হয়েছে তা অনেক ছোট৷ প্রত্যেক পরিবারের জন্য একটি রুম৷ আট ফুট বাই নয় ফুট৷ তাতে দুই-তিন জনের বেশি থাকা সম্ভব নয়৷ আমরা কী করে ছয়-সাত সদস্যের একটি পরিবার ওই একটি রুমে থাকবো?’’ তার দাবি, ‘‘ভাসানচরের চেয়ে কক্সবাজারে শরণার্থী ক্যাম্পে থাকার ঘর বড়৷ এখানে সুবিধা বেশি৷’’

ভাসানচরে যাবেন কিনা সে সিদ্ধান্ত এখনো নেননি তিনি৷ সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পর সিদ্ধান্ত জনাবেন৷ কবে আলাপ-আলোচনা করবেন তারও ঠিক নেই৷ আরো দু-একটি ক্যাম্পের যারা ভাসানচরে গিয়েছেন, তাদের ফোন করে হুমকি দেয়ারও অভিযোগ করেন তিনি৷ তাদের কথা বলতে নিষেধ করা হচ্ছে৷ তবে নিজে কোনো হুমকি পাননি বলে জানান মোহাম্মদ নূর৷

মোহাম্মদ মোস্তফাও একই কথা বলেন, ‘‘থাকার ঘর ছোট৷ তবে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা ভালোই আছে৷’’ কিন্তু ভাসানচরে যাওয়ার ব্যাপারে তিনিও কোনো মতামত জানাননি৷ তারও একই কথা, ‘‘সবার সঙ্গে কথা বলি৷ দেখি তারা কী বলেন৷’’

হাফিজুর রহমানের সঙ্গেও কথা হয় বৃহস্পতিবার৷ তিনি সেখানকার রাস্তাঘাট, স্থাপনা, পুকুর এগুলোর বর্ণনা দেন৷ কিন্তু সেখানে যাওয়া না যাওয়ার ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি৷ তিনি বলেন, ‘‘যা দেখেছি তাতে ভালোই মনে হয়ছে৷ কিন্তু সবাই সেটা বুঝতে চায় না৷ তাই এখন সবার সাথে বসে যে সিদ্ধান্ত হয় তা-ই হবে৷’’

নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলায় মেঘনা নদী ও বঙ্গোপসাগরের মোহনায় ভাসানচরের অবস্থান৷ সরকার নিজস্ব তহবিল থেকে দুই হাজার ৩১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচরে আশ্রয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে ৷ জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাস থেকে সেখানকার ৪০ বর্গকিলোমিটার এলাকা রক্ষা করতে ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বাঁধ তৈরি করেছে৷ এক লাখ রোহিঙ্গার বসবাসের জন্য ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে সেখানে৷

শরণার্থী কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার বলেন, ‘‘আমরা একটা উদ্দেশ্য নিয়ে তাদের সেখানে নিয়ে গিয়েছিলাম৷ তারা নিজ চোখে দেখে আসুক সরকার তাদের যেখানে থাকতে দিতে চায় সেই জায়গাটি কেমন৷ তারাই নিজ চোখে দেখে সিদ্ধান্ত নিক৷ আমাদের কাছে ভাসানচর দেখে তাদের কেউ কেউ সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন৷ কেউ কেউ নেগেটিভও আছেন৷ এখন তারা তাদের নিজেদের মধ্যে কথা বলুক৷ তারপর সিদ্ধান্ত নিক৷ আমরা তো কাউকে জোর করে পাঠাবো না৷’’

‘‘তবে তাদের কেউ কেউ হুমকি দিচ্ছে বলে শুনেছি৷ এটা হতে পারে৷ কারণ, তাদের মধ্যে নানা মত ও নানা গ্রুপ আছে,’’ বলেন শরণার্থী কমিশনার৷

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ হলো, রোহিঙ্গাদের যত জন ভাসানচরে যেতে চায়, তাদের সেখানে বসবাসের ব্যবস্থা করা৷ যে দলটি ভাসানচরে গিয়েছিল, তারা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে৷ এখন তাদের সঙ্গে বসা হবে৷ বিস্তারিত কথা হবে৷ শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন (ট্রিপল আরসি), পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্টরা আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন৷’’ সূত্র : ডয়চে ভেলে

Leave a Reply