৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | বৃহস্পতিবার, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

করোনাভাইরাস: ভারতে একদিনে রেকর্ড ২০০৩ জনের মৃত্যু

প্রকাশিতঃ জুন ১৭, ২০২০, ৪:২৫ অপরাহ্ণ



করোনাভাইরাস: ভারতে একদিনে রেকর্ড ২০০৩ জনের মৃত্যু।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
ভারতে প্রতিনিয়ত বাড়ছে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে একদিনে রেকর্ড ২০০৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ভারতের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তথ্যের বরাত দিয়ে এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়াসহ স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম বলছে, বুধবার পর্যন্ত দেশটিতে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৫৪ হাজার ৬৫ জনে এবং নতুন করে আরও দুই হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৯০৩ জনে।

মোট আক্রান্ত রোগীর মধ্যে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন এক লাখ ৫৫ হাজার ২২৭ জন এবং সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৮৬ হাজার ৯৩৫ জন।

এর আগে, মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশটির সকল রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন এবং দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।

এসময়, অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতের করোনা পরিস্থিতি ভালো দাবি করে সবাইকে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দেন মোদি।

দিল্লি, নয়ডা, মুম্বাই, চেন্নাই, গুজরাট, রাজস্থান, মধ্য প্রদেশ, উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় বিভিন্ন রাজ্য এবং দেশের অন্যান্য অঞ্চলেও করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ দেশের তালিকায় বেশি আক্রান্তের দিক দিয়ে বর্তমানে চতুর্থ স্থানে রয়েছে ভারত।

এদিকে সস্তা ও সহজলভ্য একটি ওষুধ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তির জীবন রক্ষা করতে সাহায্য করবে বলে দাবি করেছেন যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানী।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বল্প মাত্রার এই স্টেরয়েড চিকিৎসা যুগান্তকারী এক আবিষ্কার।

ডেক্সামথাসোন নামের ওই ওষুধ ব্যবহার করলে ভেন্টিলেটারে থাকা রোগীদের মৃত্যুর ঝুঁকি এক তৃতীয়াংশ হ্রাস পাবে। আর যাদের অক্সিজেন দিয়ে চিকিৎসা করা হচ্ছে তাদের ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার এক পঞ্চমাংশ হ্রাস পেতে পারে।

গবেষকদের ধারণা, ব্রিটেনে যখন করোনা মহামারি শুরু হয়েছে তার প্রথম থেকেই যদি এই ওষুধ ব্যবহার করা সম্ভব হতো তাহলে পাঁচ হাজার মানুষের জীবন বাঁচানো যেত। কারণ এই ওষুধ সস্তা।

বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোতে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় এই ওষুধ বিশালভাবে কাজে লাগতে পারে এবং যেসব দেশ রোগীদের সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে এটা তাদের জন্য বিশাল সুখবর বলে দাবি বিজ্ঞানীদের। ইউএনবি

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর